Shibli-H-vai

কিভাবে প্রোডাকটিভ হবেনঃ

আমরা সবাই চাই অনেক কম সময়ে একটা কাজ খুব ভালোভাবে করতে এবং একদিনে অনেক কাজ করতে।অনেক সময়ে এটাও মনে হয় “ইশ!দিন যদি ৩০ ঘন্টার হতো!কত বেশি কাজ করা যেতো!কিন্তু সেটা আপনার ভুল ধারণা। কারণ যার সময় ব্যবহারে কৌশলগত সমস্যা থাকে তার জন্য প্রোডাকটিভ হওয়া আসলেই কঠিন।যাই হোক।আর কথা না বাড়িয়ে চলুন জেনে আসি কিভাবে আপনিও কাজের প্রোডাকটিভিটি বাড়াতে পারবেন সহজেই।
আমেরিকার বিখ্যাত প্রোডাকটিভিটি কন্সাল্টেন্ট “আইভি লি” কাজের গুণগতমান ও প্রোডাকটিভিটি বৃদ্ধির ব্যাপারে বেশ কিছু পরামর্শ দিয়েছেন।চলুন জেনে নিই সেগুলোঃ
১.আগামীকালের জন্য ৬টি কাজের তালিকা তৈরি করুন ঃ
প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর সময় আগামীকাল করতে হবে এমন ৬ টি কাজের লিস্ট তৈরি করুন।কমও না বেশিও না ৬ টি ; এবং কাজগুলোকে প্রায়োরিটি অনুযায়ী ভাগ করে রাখুন।
২.গেট দ্যা থিংস ডান পদ্ধতি অবলম্বন করুনঃ
আপনার কাজের প্রায়োরিটি অনুযায়ী কাজ শুরু করুন তবে একটা কাজ শেষ না করে আরেকটাতে হাত দেবেন না। যেভাবেই হোক সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজটা সবার আগে শুরু করুন এবং যেভাবেই হোক তা পরিপূর্ণ ভাবে শেষ করুন।এক কাজের ভেতরে আরেক কাজ ঢোকাবেন না।এটা আপনার কাজের ছন্দ আর গতিকেই নস্ট করবে।এই গেট দ্যা থিংস ডান পদ্ধতি নিয়ে আরেকদিন বিস্তারিত বলবো ইংশা আল্লাহ।
৩.শেষ যদি না হয় তবেঃ
এমন হতেই পারে যে তালিকার যেকোনো কাজ করা হয়ে ওঠেনি
অর্থাৎ অসম্পূর্ণ রয়ে গেছে।এমন কাজগুলোকে পরের দিনের ৬টি কাজের লিস্টের প্রথম দিকে রাখতে হবে।
৪.পুনরাবৃত্তি ঃ
সবশেষে আসে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় পুনরাবৃত্তি। এই প্রক্রিয়াটিকে অভ্যাসে পরিণত করতে পারলে সর্বোচ্চ সফলতা আসার শতভাগ সম্ভাবনা রয়েছে।এমনকি আমেরিকার কোম্পানিগুলোতে এর প্রয়োগ ঈর্ষণীয় সফলতার কারণ হয়েছে। তাই, প্রোডাকটিভিটি বাড়াতে চাইলে আইভি লি মেথডটি নিশ্চিন্তে আয়ত্তে আনুন।আপনার কাজের গতি আর মান বাড়বে নিঃসন্দেহে। আর সফলতা তো আসবেই।
Written by: Mahtab Abdullah Monjur

Tags: No tags

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *