যৌথব্যাবসার পরিকল্পনা ২০১৯-২০২০ | Joint business plan 2019 -2020

কন্টেন্ট মারকেটিংঃ আজকের ব্যবসায়ের অস্ত্র

ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে যারা কাজ করছে তাদের কাছে খুবই পরিচিত একটি টার্ম হলো কন্টেন্ট মার্কেটিং। কন্টেন্ট মার্কেটিং বলতে মূলত বোঝায় আপনার পণ্য সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দেওয়ার মাধ্যমে আপনার ব্র্যান্ডের সাথে তাকে সম্পৃক্ত করা।এক্ষেত্রে কন্টেন্ট পরিবেশনের ক্ষেত্রে অডিও,ভিডিও,ছবি ,আর্টিকেল যেকোনো মাধ্যমকেই বেছে নেওয়া যেতে পারে।
কন্টেন্ট মার্কেটিং শতবছর ধরে চলে আসলেও প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে এতে এসেছে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন।শুরুর দিকে শুধু গল্প বলার মাধ্যমেই পাঠকের সাথে সংযোগ স্থাপন করা হলেও এখন অডিও, ভিডিও,ইমেজ সকল মাধ্যম ব্যবহার করেই কন্টেন্ট পাঠকের কাছে পৌঁছানোর মাধ্যমে ব্রান্ডকে আকর্ষণীয়রূপে উপস্থাপন করা হয়।এভাবে ক্রেতা তার প্রয়োজনীয় তথ্য সহজেই পাওয়ার মাধ্যমে ক্রেতা ও ব্র্যান্ডের মধ্যে দৃঢ় সম্পর্ক গড়ে উঠে।

আগে মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে বিজ্ঞাপনের ব্যাবহার খুবই জনপ্রিয় ছিল। কিন্তু বর্তমানে ওয়েব দুনিয়া টিভি রেডিওর জায়গাটা দখল করে নিয়েছে।অনলাইনেও এডব্লকিং সফটওয়ারের ব্যবহার বাড়ছে দিনে দিনে।বিজ্ঞাপন কাজের মধ্যেই চলে আসে দেখে অনেকক্ষেত্রেই বিরক্তির উদ্রেক ঘটায়।কিন্তু কনটেন্টের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় তথ্য সব একসাথে পাওয়া যায় দেখে ক্রেতা আগ্রহী হন।কন্টেন্ট মার্কেটিং এর ক্ষেত্রে সরাসরি কোনো পণ্য কেনার কথা বলা হয় না।গ্রাহকের চাহিদা বিশ্লেষণের মাধ্যমে তার চাওয়া সম্পর্কে তাকে সচেতন করবেন।কোন ধরনের পণ্য সে চাওয়া পূরণ করতে সক্ষম তা তাকে জানাবেন।আপনার পণ্য সেসব চাওয়া পূরণ করতে কতটা উপযুক্ত তা উপস্থাপন করবেন।এরপর গ্রাহক নিজ সিদ্ধান্তগুনে আপনার পণ্য বা সেবা নিতে উৎসাহী হবে।একারণেই কন্টেন্ট তথ্যসমৃদ্ধ, মানসম্পন্ন হওয়া গুরুত্বপূর্ণ। কন্টেন্ট ভালো হলে সে ব্র্যান্ডের প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়বে।

উদাহরণস্বরূপ বলা যায় ব্লেন্ডটেক কোম্পানির কথা।তাদের ব্লেন্ডার খুবই উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ছিল।কিন্তু তবু তাদের ব্যবসা যখন লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছিল তখন তারা তাদের প্রচারের জন্য ভিন্ন কৌশলে নিজেদের হাজির করেন। তারা ইউটিউবে ‘উইল ইট ব্লেন্ড?’ নামে একটি সিরিজ ভিডিও আপলোড করা শুরু করেন। এতে তারা দেখান তাদের ব্লেন্ডারে তারা গলফ বল, মার্বেল,আইফোন যেকোনোকিছুই ব্লেন্ড করে ফেলতে সক্ষম।এতে করে গ্রাহক বুঝতে পারেন তাদের ব্লেন্ডারের মান সম্পর্কে।অন্য ব্র্যান্ডের ব্লেন্ডারের চেয়ে ব্লেন্ডটেকের ব্লেন্ডার কেন এগিয়ে তা তাদের আর বলে বোঝানোর প্রয়োজন হয় নি। গ্রাহক নিজেই তা বিচার করতে পেরেছেন।এ প্রচারণার ফলে তাদের বিক্রি উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়ে যায়।

বহুআগে থেকেই গল্পের মাধ্যমে পণ্য বিক্রির কৌশল চলে আসলেও তা আজও বেশ জনপ্রিয়।গল্প সহজেই মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করতে সক্ষম।মানুষ তার নিজের আবেগের মাধ্যমে গল্পকে অনুভব করতে পারেন। কন্টেন্ট মার্কেটিং এর এ গুরুত্বপূর্ণ কৌশল কাজে লাগাতে দেখা যায় ইকমার্স কোম্পানি ফ্লিপকারট কে। তাদের ওয়েবসাইটে ‘Flipkart Stories’ সেকশনে ক্রেতা বিক্রেতা দুজনেই পণ্য নিয়ে তাদের গল্প,অভিজ্ঞতা তুলে ধরছেন।এতে করে ক্রেতা বিক্রেতার মধ্যে একটি আস্থার সম্পর্ক গড়ে উঠছে। এছাড়া ওয়েবসাইটে নানান ব্লগে ফ্লিপকারট সম্পর্কিত নানা প্রশ্নোত্তর,শপিং নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা,তাদের উদ্যোগ সম্পর্কিত সকল তথ্য সাজানো আছে।এটি গ্রাহককে তাদের পণ্য কিনতে আগ্রহী করে তোলে।

ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে সম্পর্ক স্থাপিত হওয়া যেহেতু সময়সাপেক্ষ ব্যাপার।এ মার্কেটিং কৌশলও বেশ সময়সাপেক্ষ। তাই সফল হতে হলে ধৈর্য ধরে আমাদের সৃষ্টিশীল ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে মানসম্পন্ন কন্টেন্ট বানাতে হবে।

Tags: No tags

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *